• বুধবার   ২৩ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ৯ ১৪২৮

  • || ১২ জ্বিলকদ ১৪৪২

সর্বশেষ:
আজ ২৩ জুন এ দেশের বৃহত্তম ও প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

উত্তরবঙ্গের ২য় বৃহত্তম ও প্রাচীন কারাগারের নাম দিনাজপুর কারাগার 

প্রকাশিত: ৯ জুন ২০২১  

উত্তরবঙ্গের দ্বিতীয় বৃহত্তম ও প্রাচীন কারাগারটি দিনাজপুর শহরের প্রানকেন্দ্রে ঐতিহ্যবাহী লোক ভবনের বিপরীতে প্রায় ২৯ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত যা ১৮৫৪ খ্রীষ্টাব্দে স্থাপিত হয় (বৃহত্তম কারাগার রাজশাহী যা ১৮৪০ সালে স্থাপিত এবং ৫৫ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত)। তখন এটির ধারণ ক্ষমতা ছিল ৫৯০ জন বন্দির। ঐ সময় গড়ে প্রায় ১০০০ এর বেশী বন্দি এ কারাগারে অবস্থান করত।

বর্তমানে দিনাজপুর জেলা কারাগার পুন: নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ৮৪ কোটি টাকা ব্যয়ে কারা কর্মকর্তা/কর্মচারিদের জন্য ০৫তলা বিশিষ্ট ১০ টি আবাসিক ভবন, ০৩ তলা বিশিষ্ট জেল সুপারের বাসভবন এবং কারাভ্যন্তরে বন্দিদের জন্য ০৬ তলা বিশিষ্ট ০৬টি হাজতি ভবন, ০৬ তলা বিশিষ্ট ০৩টি কয়েদি ভবন, ০১ তলা বিশিষ্ট ০১টি ওয়ার্ক সেড, ০১তলা বিশিষ্ট ০১টি কিশোর ভবন, মহিলা বন্দিদের জন্য সেফ কাস্টডি ০২ তলা বিশিষ্ট ০১টি ভবন, ০১ তলা বিশিষ্ট ০১টি ডিভিশন ভবন, ফাঁসির গ্যালোজ, ০১ তলা বিশিষ্ট ০২টি রান্নাঘর, ০১ তলা বিশিষ্ট ০১টি কেস টেবিল, প্রশাসনিক ভবনের উপরে জেলারের বাসভবনসহ ২তলা বিশিষ্ট রেষ্ট হাউজ, ০১ তলা বিশিষ্ট রিজার্ভ গার্ড হাউজ, প্যারেড গ্রাউন্ড, গ্যারেজ, ০২ তলা বিশিষ্ট মাল্টিপারপাস হল ও আধুনিক কনফারেন্স রুম এবং বিদ্যামান মসজিদের আধুনিকীকরন ও পার্শ্বমূখী সম্প্রসারনের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। নব-নির্মিত কারাগারটি ২০ শে জানুয়ারি-২০১৬ তারিখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন। কারাগারটি পুন: নির্মাণের ফলে বর্তমানে এটি একটি আধুনিক কারাগারে রূপান্তরিত করা হয়েছে। এর বর্তমান  ধারণ ক্ষমতা ৩১৫৩ জন।  অন্তরীন বন্দির সংখ্যা গড়ে ১৭০০-১৮০০ জন। প্রতিষ্ঠান প্রধান ০১ জন জেল সুপার এবং তার কাজে সহযোগীতা করার জন্য নির্বাহী অফিসার হিসাবে ০১ জন জেলার, ০২ জন ডেপুটি জেলার, ০২ জন কারা সহকারী, ০২ জন সর্বপ্রধান কারারক্ষী, ১১ জন প্রধান কারারক্ষী, ১৭৬ জন কারারক্ষী, ১০ জন মহিলা কারারক্ষী ও ০১ জন গাড়ী চালক কর্মরত রয়েছেন।

অন্যদিকে এ কারাগারে বন্দিদের সুচিকিৎসার জন্য রয়েছে একটি ৭৫ শয্যা বিশিষ্ট কারা হাসপাতাল। চিকিৎসার জন্য এখানে স্থানীয় সিভিল সার্জনের দপ্তর থেকে অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসাবে ০১ জন মেডিকেল অফিসার নিয়োজিত রয়েছেন। নিয়মিত ভাবে চিকিৎসা কাজে সহযোগীতা করার জন্য রয়েছেন ০১ জন ফার্মাসিস্ট । বন্দি চিকিৎসার বিষয়টি সার্বিকভাবে তদারকির জন্য কারাবিধিমতে প্রধান মেডিকেল অফিসার হিসাবে জেলার সিভিল সার্জন দায়িত্ব পালন করে থাকেন।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –