• শুক্রবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ২ ১৪২৮

  • || ০৮ সফর ১৪৪৩

সর্বশেষ:
১ কোটি ৪২ লাখ মানুষ দ্বিতীয় ডোজের আওতায় বঙ্গবন্ধু ছিলেন একজন খাঁটি পরিবেশ ও প্রকৃতিপ্রেমিক- পরিবেশমন্ত্রী `ঘরে ঘরে ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল পৌঁছে গেছে` মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে ২৪ কোটি ডোজ ভ্যাকসিন পাব: পররাষ্ট্রমন্ত্রী `স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উৎসব পালিত হবে তৃণমূল পর্যন্ত`

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে বেড়েছে পেঁয়াজ আমদানি   

প্রকাশিত: ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১  

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে বেড়েছে পেঁয়াজ আমদানি। চাহিদার তুলনায় আমদানি বেশি ও অতিরিক্ত গরমের কারণে কমেছে আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম। বন্দরে প্রকারভেদে কেজিতে ৪ থেকে ৫ টাকা কমে প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৪ থেকে ২৫ টাকা দরে। বন্দরে পেঁয়াজসহ আমদানিকৃত সকল কাঁচাপণ্য দ্রুত ছাড়করণে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস পানামা কর্তৃপক্ষের। 

দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক রাখতে হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকরা প্রায় ৫০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানির জন্য আইপি খোলেন। প্রথমদিকে আমদানিকৃত পেঁয়াজবোঝাই ১০ থেকে ১৫টি ট্রাক হিলি স্থলবন্দরে প্রবেশ করলেও চাহিদা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে  বাড়তে থাকে ট্রাকের সংখ্যা। সম্প্রতি ভারত থেকে ৩০-৪০ ট্রাক পেঁয়াজ বন্দরে প্রবেশ করেছে। চাহিদার তুলনায় আমদানি বেশি এবং অতিরিক্ত গরমের কারণে বন্দরে কমেছে ক্রেতা সমাগম। ফলে বন্দরের পাইকারী ও খুচরা বাজারে কমেছে আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে ৩০ টাকা কেজির পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকা দরে। এতে লোকসানের আশঙ্কা ব্যবসায়ীদের।

পেঁয়াজ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি রবিউল জানান, বাংলাদেশে পেঁয়াজের চাহিদা একটু কমে যাওয়ার কারণে আমদানিকৃত পেঁয়াজের দাম কমেছে। যে পেঁয়াজ ৩০ থেকে ৩১ টাকা ছিল সেটা এখন ২৫ থেকে ২৬ টাকা বিক্রি হচ্ছে।
আরেক প্রতিনিধি সবুজ বলেন,পেঁয়াজের আমদানি আগের তুলনায় অনেক বেশি। আগে ১০ থেকে ১৫ গাড়ি পেঁয়াজ আসতো আর এখন ৩০ থেকে ৪০ গাড়ি পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে । মোকামে চাহিদা কম এবং অতিরিক্ত গরমের কারণে মানুষ পেঁয়াজ কম কিনছে। যে কারণে দাম একটু কমেছে।

বন্দরে পেঁয়াজ কিনতে আসা সাদ্দাম বলেন, মোকামে পেঁয়াজ বিক্রি কম হওয়ার কারনে আমরা পেঁয়াজ কম কিনছি। কারণ সেখানে বিক্রি না হলে আমরা কীভাবে কিনব। ক্রেতা না থাকার কারণেই কিন্তু দামটা কমেছে।

হিলি বন্দরের পানামা পোর্টের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন প্রতাব মল্লিক জানান, ভারত থেকে হিলি বন্দরে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত আছে। তবে আগে থেকে পেঁয়াজ আমদানি অনেকটা বেশি হয়েছে। পেঁয়াজসহ আমদানিকৃত সকল কাঁচাপণ্য দ্রুত ছাড়করণে আমরা ব্যবসায়ীদের সব ধরনের সহযোগিতা করছি।

হিলি কাস্টমসের তথ্য মতে, চলতি মাসের গত আট কর্মদিবসে হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ২২১টি ট্রাকে সাড়ে ৬ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে। 

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –