ব্রেকিং:
করোনায় আক্রান্ত হয়ে রংপুর বিভাগের কুড়িগ্রামে আরো একজনের মৃত্যু। রংপুর নগরীতে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুনাশক স্প্রে করছে সিটি কর্পোরেশন।
  • বৃহস্পতিবার   ১৫ এপ্রিল ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২ ১৪২৮

  • || ০২ রমজান ১৪৪২

সর্বশেষ:
রংপুর নগরীর শাপলা চত্বর এলাকায় র‌্যাব-১৩ এর উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতামূলক প্রচারণা চলছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবিলায় সারাদেশে দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক লকডাউন চলছে। প্রবাসী কর্মীদের জন্য বিশেষ ফ্লাইটের ব্যবস্থা করছে সরকার বসুন্ধরার হাসপাতাল ‘উধাও’ হয়নি, বণ্টন হয়েছে- স্বাস্থ্যের ডিজি রংপুরসহ দেশের তিন বিভাগ ও দুই জেলার একাধিক স্থানে কালবৈশাখী ঝড়ের আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সর্বাত্মক লকডাউনের দ্বিতীয় দিনেও রংপুরে রাস্তার মোড়ে মোড়ে বসেছে পুলিশের চেকপোস্ট।

দিনাজপুরে এবার দ্বিতীয় লোহার খনির সন্ধানে নেমেছে জিএসবি

প্রকাশিত: ২৮ মার্চ ২০২১  

খনির জেলা হিসেবে পরিচিত দিনাজপুরে এবার একটি লোহার খনির সন্ধানে নেমেছে বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর (জিএসবি)। অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর খনির সম্ভাবতা যাচাই ও জরিপ কূপ খনন কাজ শুরুর জন্য ইতিমধ্যে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। আগামী এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে আনুষ্ঠানিকভাবে এই খনন কাজ শুরু হওয়ার কথা।

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার ১০ নম্বর পুনট্রি ইউনিয়নের কেশবপুর মৌজায় এই খনির অবস্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জিএসবির কর্মকর্তারা জানান, এরই মধ্যে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে কূপ খননের কাজে প্রস্তুতি শুরু করেছে তাদের একটি অনুসন্ধানী দল। প্রথম তিন মাস কূপ খনন করে চালানো হবে খনিজ সম্পদের অনুসন্ধান কাজ। আর তারই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চলছে সেখানে।

তারা ধারণা করছেন, সম্ভাব্য এই খনিতে লোহার কাঁচামাল আকরিকের পুরুত্ব অনেক বেশি। তাই লোহার সঙ্গে তামাসহ অন্যান্য মূল্যবান সম্পদ পাওয়ার আশাও করছেন তারা। প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ নিয়ে আসা হচ্ছে কেশবপুরে। সংরক্ষিত এলাকা হিসাবে সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে।

১০ নম্বর পুনট্রি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. নূর-এ-কামাল জানান, বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের পরিচালক (ভূতত্ত্ব) মো. আবদুল আজিজ পাটোয়ারী স্বাক্ষরিত দিনাজপুর জেলা প্রশাসককে দেওয়া একটি চিঠির অনুলিপি পেয়েছেন তিনি। চিঠিতে কেশবপুর এলাকায় জি ডি এইচ-৭৬/২১ কূপ খনন কার্যক্রমে বহিরাঙ্গনে অবস্থানকালীন সময়ে কর্মকর্তাগণকে আনুষঙ্গিক সহায়তা, নিরাপত্তা, তথ্য ও উপাত্ত সরবরাহ, যাতায়াতে সহযোগিতা করার অনুরোধ করা হয়েছে।

এই চিঠি পুলিশ সুপার, চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, চিরিরবন্দর থানাকেও প্রদান করা হয়েছে। চিঠিতে উল্লেখিত কূপ খনন কাজে দল প্রধান হিসেবে রয়েছেন উপপরিচালক (ড্রিলিং প্রকৌশলী) মো. মাসুদ রানা। চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা সিদ্দিকা এ সংক্রান্ত একটি চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে খনন কার্যক্রম পরিচালনা করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে এবং এতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা করার কথাও জানান তিনি।

এদিকে এলাকায় লোহার খনি আবিষ্কার হতে যাচ্ছে এমন খবরে আনন্দে উদ্বেলিত ঐ এলাকার মানুষ। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নূর-এ কামাল জানান, এখানে খনি নিশ্চিত হলে এলাকার সার্বিক চিত্র পালটে যাবে। উল্লেখ্য, দিনাজপুর জেলায় ইতিমধ্যে বড়পুকুরিয়ায় কয়লা খনি এবং মধ্যপাড়ায় পাথর খনির উত্তোলন কাজ অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও ফুলবাড়ী ও নবাবগঞ্জের দিঘীপাড়ায় আরো দুটি কয়লা খনি এবং হাকিমপুরে একটি উন্নতমানের আকরিক লোহার খনি সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছে বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –