• শনিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৫ ১৪২৯

  • || ০৫ রজব ১৪৪৪

সর্বশেষ:
বৃষ্টি নামলেই শীত, লঘুচাপের ইঙ্গিত দেশে নতুন সুপারফুড ‘সাউ কিনোয়া-১’ ‘আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সরকার সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে’ স্বল্প খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্য গ্রহণ করতে হবে জমি নিয়ে সংঘর্ষে দুই যুবক নিহত: ঘটনা জেরে ৩০ বাড়িতে আগুন

নবাবগঞ্জে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পানচাষ

প্রকাশিত: ১৫ অক্টোবর ২০২২  

নবাবগঞ্জে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পানচাষ                            
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে ভালো ফলন ও দাম পাওয়ায় চাষিদের মধ্যে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পানচাষ।
উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি যুগ যুগ ধরে পানচাষ করে আসছেন কিছু পানচাষী। আগে পানচাষে তেমন লাভ ছিল না। কিন্তু গেল কয়েক বছর যাবত পানের ভাল দাম পাওয়ায় চাষীরা এখন লাভবান হচ্ছেন। 

এই এলাকার পানের ব্যাপক চাহিদা থাকায় এখানকার পান যাচ্ছে অন্যান্য জেলাতেও। অন্যান্য ফসলের চেয়ে বেশি লাভ হওয়ায় গেল কয়েক বছরে ঐ এলাকায় পানচাষীর সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতি বছরে বাড়ছে পানবরজ। 

উপজেলার বিনোদনগর ইউনিয়নের রাঘবেন্দ্রপুর গ্রামের ইসমাইল হোসেনের ছেলে হুমায়ুন বাদশা জানান, গেল ১২ বছর ধরে তিনি ২৮ শতক জমিতে পান চাষ করে আসছেন। চলতি বছরে তার ২৮ শতক জমিতে পান চাষে খরচ হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। এ পর্যন্ত তিনি ৭০ হাজার টাকার পান বিক্রি করেছেন । এ বছরে তিনি আরও কম পক্ষে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকার পান বিক্রি করবেন বলে আশা করছেন। এই পান চাষের মধ্য দিয়ে তার সংসারে ফিরেছে স্বচ্ছলতা। তার মত ঐ এলাকার অনেকের ভাগ্য বদল হয়েছে পানচাষ করে। পাশাপাশি পান চাষের সঙ্গে জড়িত বড় একটি অংশ কৃষি শ্রমিকদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে।

তবে পান চাষে বেশি পুঁজি লাগায় পুঁজির অভাবে নিজের জমি থাকার পরেও সম্ভাবনাময় এ ফসলের পরিধি বৃদ্ধি করতে পারছেন না পানচাষীরা। স্বল্প সুদে ঋণ সুবিধা ও প্রশিক্ষন পেলে পান চাষে আরও লাভবান হবেন বলে দাবী করছেন এলাকার পানচাষীরা।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, চলতি বছরে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে ২৫ হেক্টর জমিতে পান চাষ করেছেন চাষীরা । এবারে আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় পানের ভাল ফলন হয়েছে। পাশাপাশি এ এলাকার পানের ব্যাপক চাহিদা থাকায় এবারে ভাল দাম পাচ্ছেন পানচাষীরা। উপজেলার মাটি পানচাষের উপযোগী হওয়ায় দিন দিন পানচাষে চাষীদের আগ্রহ বাড়ছে। আগ্রহী চাষীদের কৃষি বিভাগ থেকে সব ধরণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। 

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –