• বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৮

  • || ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
রাস্তায় নেমে গাড়ি ভাঙচুর ছাত্রদের কাজ নয়: প্রধানমন্ত্রী সব মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তার জন্যই আইন: তথ্যমন্ত্রী আখাউড়া-আগরতলা রেল রুট পুনরায় চালুর ওপর গুরুত্বারোপ জানাজা শেষ করেই পাকিস্তানি বাহিনীকে ধাওয়া করি দেশে আসতে প্রবাসীদের জন্য নতুন নির্দেশনা

নীলফামারীতে চারালকাটা নদী ও জলাশয় খনন কাজের উদ্বোধন

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২১  

অভ্যন্তরিন ছোট নদী, খাল এবং জলাশয় কাজের উদ্বোধন করা হয়। আজ বুধবার(২৪ নভেম্বর/২০২১) দুপুরে নীলফামারী সদর উপজেলার চাড়ালকাটা নদী সোজা করন ও বুড়ি তিস্তা নদীর তীর সংরক্ষন প্রকল্পের আওতায় চারালকাটা জলাশয় খনন কাজের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি রেলপথ সংসদীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য, সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী নীলফামারী সদর আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর।

সৈয়দপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের আয়োজনে এ সময় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সিনিয়ন সচিব কবির বিন আনোয়ার, নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী , পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মোখলেছুর রহমান (বিপিএম,পিপিএম), রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মাহাবুবার রহমান সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ প্রমুখ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উত্তরাঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ এর সভাপতিত্বে উদ্ধোধন অনুষ্ঠানের বক্তব্যে “শেখ হাসিনার ইনোভেশন ড্রেজিং করে নদী শাসন, শেখ হাসিনার অবদান মুজিব শতবর্ষের ডেল্টা প্লান” উল্লেখ করে প্রধান অতিথি নূর বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের সকল নদী,জলাশয় খনন এর উদ্যোগ গ্রহন করেছেন। এতে করে পুরোনো সব নদীগুলো খননের মাধ্যমে নব্যতা ফিরে পাবে। ভু-গর্ভস্থ পানির উপর চাপ কমাতে ভু-গর্ভের উপরের পানিকে প্রক্রিয়া করে কাজে লাগাতে হবে, তাহলেই ভুমিক¤প সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশ রক্ষা পাবে।নুর বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের বর্ণনা দিয়ে নীলফামারী জেলার উন্নয়নকর্মকান্ড তুলে ধরেন। সেই সাথে প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড সুষ্ঠুভাবে স¤পন্ন করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সৈয়দপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কৃষ্ণ কমল চন্দ্র বলেন উক্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট বরাদ্দ ১৪৭ কোটি ৫৫লাখ টাকা। এরমধ্যে কাজের উদ্ধোধন করা হলো চারালকাটা নদীর ৯.৪৫ কিলোমিটার সোজাকরন ও নদী খনন এবং লুপকাটিং ৭৫০ মিটার কাজে মোট ব্যায় ধরা হয়েছে ২২ কোটি ৩৬ লাখ। আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যে এই কাজ সমাপ্ত করা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –