• মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

  • || ১৯ জ্বিলকদ ১৪৪৫

ফার্মারস ক্লাইমেট স্মার্ট স্কুলের মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৮ মে ২০২৪  

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাদল চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, স্বাধীনতার পর আমাদের কিছু ছিল না। ছিল শুধু আমাদের সাড়ে সাত কোটি মানুষ আর ১ লক্ষ ৪৭ হাজার বর্গলিং ভূ-খন্ড। বঙ্গবন্ধু এই দু’টি সম্পদকে ভরসা করে পরিকল্পনা শুরু করেন। তিনি দেখেছিলেন আমার উর্বর ভূ-খন্ড আছে আর আমার সাড়ে সাত কোটি বাঙালী আছে। তখন উন্নত চাষাবাদ কিভাবে হবে, উন্নত বীজ, সারের ব্যবহার, গভীর নলকূপ এগুলো নিয়ে পরিকল্পনা শুরু হয়। আগে দেশী পটল হতো, বড় বড় টিলায় চাষাবাদ করতে হতো। এখন আধুনিক চাষাবাদ শুরু হয়েছে। এই পটল এখন দৃষ্টিনন্দন মাচায় উঠেছে। এটা কেন হয়েছে, এটা বঙ্গবন্ধুর সেই চিন্তাভাবনা থেকে সম্ভব হয়েছে। এখন আমরা স্মার্ট পদ্ধতিতে সব্জি চাষাবাদ করছি। আমাদের উৎপাদন ক্ষমতা বেড়েছে।

জীবনকে সুন্দর করার জন্য, এই বৈরী প্রভাবকে মোকাবিলা করার জন্য শ্রষ্টাই এগুলো তৈরী করে রেখেছেন। এখন আমরা সেটা খুঁজে খুঁজে বের করে বাস্তবে সেটা ব্যবহার করছি। মানুষের চিন্তা এত শক্তিশালীভাবে সৃষ্টিকর্তা দিয়েছেন, যে এ রকম ১৩ লক্ষ পৃথিবী এক করলে যে প্রযুক্তি আছে, তার থেকেও বেশী প্রযুক্তি মানুষের মস্তিষ্কের মধ্যে আছে। শুধু সেটা চিন্তা করে, খুঁজে খুঁজে বের করে, এই যে বাইরে যে প্রযুক্তিগুলি এগুলো আসছে। 

বুধবার বিরল উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ফরক্কাবাদ ইউনিয়নের ঐতিহাসিক তেঘরা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার এন্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট (সিএসএডাব্লিউএম) (ডিএই পার্ট) প্রকল্পের আওতায় ফার্মারস ক্লাইমেট স্মার্ট স্কুলের মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাদল চন্দ্র বিশ্বাস উপর্যুক্ত কথাগুলো বলেন।

দিনাজপুরের সদরপুর হর্টিকালচার সেন্টার এর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ এজামুল হক এর সভাপতিত্বে মাঠ দিবসে প্রধান আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ক্লাইমেট স্মার্ট এগ্রিকালচার এন্ড ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট এর প্রকল্প পরিচালক কৃষিবিদ খন্দকার মুহাম্মদ রাশেদ ইফতেখার। বিশেষ অতিথি’র বক্তব্য রাখেন, জেলা প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা 

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –