• বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৮

  • || ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

সর্বশেষ:
রাস্তায় নেমে গাড়ি ভাঙচুর ছাত্রদের কাজ নয়: প্রধানমন্ত্রী সব মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তার জন্যই আইন: তথ্যমন্ত্রী আখাউড়া-আগরতলা রেল রুট পুনরায় চালুর ওপর গুরুত্বারোপ জানাজা শেষ করেই পাকিস্তানি বাহিনীকে ধাওয়া করি দেশে আসতে প্রবাসীদের জন্য নতুন নির্দেশনা

ফুলবাড়ী সেটেলমেন্ট অফিসে যেন অনিয়মই নিয়ম! 

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০২১  

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী সেটেলমেন্ট অফিস এখন দালালদের দখলে। অনিয়মেই এখানে পরিণত হয়েছে নিয়মে। বেঞ্চ সহকারীর (পেশকারের) চেয়ারে বসে কাজ করে দালালরা। এতে পদে পদে হয়রানির শিকার হচ্ছে সেবা গ্রহীতারা।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে সরেজমিনে দেখা গেছে, উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আবদুল কাফি’র এজলাসে বেঞ্চ সহকারীর চেয়ারে বসে কাজ করছেন মাসুদ রানা নামে স্থানীয় এক ব্যাক্তি। পরে সেখানে সাংবাদিকের উপস্থিতি দেখে বেঞ্চ সহকারীর চেয়ার ছেড়ে নেমে পড়েন তিনি।
 
জানতে চাইলে উপ-সহকারী সেটেলমেন্ট অফিসার আব্দুল কাফি নিজেল ভুল স্বীকার করে বলেন, জনবল সঙ্কট থাকায় তাকে বসানো হয়েছিল। এখন থেকে আর বসবে না।

সেবা নিতে আসা কয়েকজন ভূমি মালিক জানান, দালালদের কারণে তারা পদে পদে হয়রানির শিকার হচ্ছেন।

সহকারী সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা আ.ন.ম আবুল ফয়েজ বলেন, উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসে আমিসহ চারজন কর্মকর্তা, পেশকার নুর মোহাম্মদ, সার্ভেয়ার জামায়াত আলী, চেইন ম্যান আবু বক্কর ও অফিস সহায়ক সানোয়ার হোসেন কাজ করছেন। এছাড়া সবাই স্থানীয় ভূমি মালিকদের সঙ্গে আসে। মাসুদ রানা নামে এ অফিসে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী নেই।

তিনি আরো বলেন, জনবল সঙ্কটের কারণে কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবী আমাদের কাজে সহযোগিতা করেন। বিনিময়ে তারা সামান্য সম্মানী নেন।

এদিকে ভূমি মালিকরা জানান, উপজেলা সেটেলমেন্ট অফিসে মাসুদ রানা, লিটন, মজনুসহ ডজনখানেক দালাল রয়েছে। তাদের ম্যানেজ না করলে কোনো কাজ হয় না।

ফুলবাড়ীর ইউএনও রিয়াজ উদ্দিন বলেন, সরকারি অফিসে দালাল রাখার কোনো নিয়ম নেই। এ বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –