• বৃহস্পতিবার   ২৯ অক্টোবর ২০২০ ||

  • কার্তিক ১৪ ১৪২৭

  • || ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

সর্বশেষ:
আত্মরক্ষার জন্য শক্তিশালী সশস্ত্রবাহিনী গড়বে সরকার: প্রধানমন্ত্রী নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে সরকারের উপর দোষ চাপাচ্ছে বিএনপি: কাদের ৯৫ হাজার নতুন শ্রেণিকক্ষ পাবে মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীরা মুজিববর্ষ উদযাপনে বাংলাদেশে আসবেন এরদোয়ান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মন্তব্যে বিরক্ত বিএনপি

বিরামপুরে লাভবান হয়ে উঠেছেন হাইব্রিড ধান চাষীরা 

প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০২০  

বর্তমান সময়ে কর্তনকৃত হাইব্রিড ধানের ভাল ফলন, আশাতীত বাজার মূল্য ও কাঁচা খড়ের উচ্চ মূল্য পেয়ে বিরামপুর উপজেলার হাইব্রিড ধান চাষীরা লাভবান হয়ে উঠেছেন। বেশি দাম পেয়ে একদিকে চাষীরা খুশি অপরদিকে কাঁচা খড়ের মাধ্যমে এলাকার গো-খাদ্যের সংকট মিটছে।

উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের কৃষক ভূট্টু মিয়া জানান, তিনি দুই বিঘা জমিতে হাইব্রিড ধান রোপন করেন। অনুকূল আবহাওয়ায় সেই ধানের ফলন বিঘা প্রতি ১৮-২০ মন হয়েছে। গত বছর ৪০০-৫০০ টাকা মন দরে ধান বিক্রি হলেও এবার প্রতিমন ৭৫০-৮০০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি বিঘা জমিতে খড় হয়েছে ১৪০০-১৫০০ আঁটি। গত বছর ২ টাকা আঁটি দরে খড় বিক্রি হলেও এবার প্রতি আঁটি খড় বিক্রি হচ্ছে ৫ টাকা দরে। সেই হিসেবে এবার হাইব্রিড ধান চাষীরা একদিকে ধানের ভাল দাম পেয়েছেন এবং খড়ও বিক্রি হচ্ছে উচ্চ মূল্যে। এতে চাষীরা লাভের উপর লাভ পেয়ে যেমন খুশি তেমনি কাঁচা খড় কিনতে পেরে গরুর মালিকরাও গো-খাদ্যের যোগান নিয়ে চিন্তা মুক্ত হচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নিকছন চন্দ্র পাল জানান, এবার উপজেলায় উঁচু শ্রেণির ১২০০ বিঘা জমিতে হাইব্রিড জাতের ধান রোপন করা হয়। চাষীরা এই ধান কাটার পর সেই জমিতে আগাম জাতের রবি ফসল আবাদ করে থাকেন। সে লক্ষ্যে সেপ্টেম্বর মাস থেকে এই হাইব্রিড জাতের ধান কাটা শুরু হয়েছে।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –