• রোববার ২১ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

  • || ১৩ মুহররম ১৪৪৬

সর্বশেষ:
সর্বোচ্চ আদালতের রায়ই আইন হিসেবে গণ্য হবে: জনপ্রশাসনমন্ত্রী। ২৫ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসির সব পরীক্ষা স্থগিত।

যত সিট পেয়ে জয় নিশ্চিত করলো লেবার পার্টি

প্রকাশিত: ৫ জুলাই ২০২৪  

দীর্ঘ ১৪ বছরের টোরি শাসনের অবসান ঘটিয়ে যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে বিপুল বিজয় পেল কিয়ার স্টারমারের লেবার পার্টি। যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউস অব কমন্সের ৬৫০টি আসনের মধ্যে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন অন্তত ৩২৬টি। সেখানে ৬৩৮টি আসনের ঘোষিত ফলাফলে ৪১০টি জিতে নিয়ে নিরঙ্কুশ জয় পেয়ে মধ্য বামপন্থি দল লেবার পার্টি সরকার গঠন করতে যাচ্ছে। এদিকে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টি পেয়েছে ১১৯টি আসন।

লন্ডনে লেবার পার্টির নেতা কিয়ার স্টারমার বলেছেন, ‘পরিবর্তন এখন থেকেই শুরু হলো।’ উচ্ছ্বসিত জনগণের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমি আনন্দিত।’

সেন্ট্রাল লন্ডনে নিজের নির্বাচনী আসনে সমর্থকদের সামনে হাজির হয়ে তিনি বলেন, ‘আপনাদের আন্তরিক ধন্যবাদ। আপনারা আমাদের দেশকে বদলে দিয়েছেন।’

পার্লামেন্টে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে লেবার নেতা বলেন, জনগণের এই বিপুল ম্যান্ডেটের সঙ্গে বিরাট এক দায়িত্বও তাদের ওপর অর্পিত হয়েছে।

‘রাজনীতিকে আমাদের আবার ফিরিয়ে নিতে হবে জনগণের সেবায়। আমাদের সরকার দেখাবে, আমরা সবার মঙ্গলের জন্যই কাজ করছি।’

২০১০ সাল থেকে ক্ষমতায় থাকা রক্ষণশীলদের যে ভরাডুবি হতে চলেছে, তা অনুমিতই ছিল। ৬৩৮টি আসনের ঘোষিত ফলাফলে প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের দল কনজারভেটিভ পার্টি পেয়েছে মাত্র ১১৭টি। অর্থাৎ প্রায় আড়াইশ আসন তারা হারিয়েছে।

এবারের নির্বাচনের যে লেবার জোয়ার দেখা যাবে, সেই পূর্বাভাস ভোটের আগেই মেনে নিয়েছিলেন সবচেয়ে কম বয়সে যুক্তরাজ্যের প্রথম ভারতীয় বংশোদ্ভূত প্রধানমন্ত্রী হওয়া সুনাক। নিজের দলের বড় হারের পর তিনি সমর্থকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

নিজের আসনে রিচমন্ডে জয় পাওয়া টোরি নেতা বলেন, ‘এই সাধারণ নির্বাচনে জয়ী হয়েছে লেবার পার্টি। স্যার কিয়ার স্টারমারকে ফোন করে আমি অভিনন্দন জানিয়েছি।’

নিয়মতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ ক্ষমতা হস্তান্তরের মধ্য দিয়ে কনজারভেটিভ পার্টি দেশের স্থিতশীলতা ও ভবিষ্যতের জন্য ভূমিকা রেখে যাবে জানিয়ে বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ব্রিটিশ জনগণ আজ রাতে তাদের রায় জানিয়ে দিয়েছে। এখানে অনেক কিছু শেখার আছে আমাদের। এই পরাজয়ের দায় আমি নিজের কাঁধে নিচ্ছি।’

যুক্তরাজ্যের আরেক বড় দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টিও এবার ভালো ফল দেখিয়েছে। এড ডেভির নেতৃত্বাধীন এ দল এবার পেয়েছে ৭১ আসন, যা গতবারের চেয়ে ৬২টি বেশি। তবে জন সুইনির দল স্কটিশ ন্যাশনাল পার্টি ৩৮টি আসন হারিয়ে পেয়েছে মাত্র আটটি।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –