• রোববার ২১ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

  • || ১৩ মুহররম ১৪৪৬

সর্বশেষ:
সর্বোচ্চ আদালতের রায়ই আইন হিসেবে গণ্য হবে: জনপ্রশাসনমন্ত্রী। ২৫ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসির সব পরীক্ষা স্থগিত।

হাবিপ্রবিতে "বঙ্গবন্ধু, ধর্মনিরপেক্ষতা ও বর্তমান প্রসঙ্গ" আলোচনা

প্রকাশিত: ২৭ আগস্ট ২০২৩  

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়াম-২ এ হাবিপ্রবি'র প্রশাসন কর্তৃক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৮ তম শাহাদাত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস ২০২৩ স্মরণে" বঙ্গবন্ধু,নিরপেক্ষতা ও বর্তমান প্রাসঙ্গিকতা" শীর্ষক আলোচনা সভা  অনুষ্ঠিত হয়।

 হাবিপ্রবি'র  ভিসি প্রফেসর ড. এম. কামরুজ্জামানের সভাপতিত্বে এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ,লেখক,গবেষক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের "বঙ্গবন্ধু চেয়ার" প্রফেসর ড. মুনতাসির মামুন। 

এছাড়া অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, হাবিপ্রবি'র প্রগতিশীল শিক্ষক ফোরামের সভাপতি প্রফেসর ড. বলরাম রায়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. ফাহিমা খানম, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ মাহবুব হোসেন, বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মোছাঃ নুর -ই- নাজমুন নাহার প্রমুখ।

আলোচনা সভায় সম্মানিত অতিথি তার বক্তব্য বলেন, ইতিহাস কখনো নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। কিন্তু আমরা বার বার ইতিহাসকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করি। তিনি নিজের গবেষণা বরাত দিয়ে  বলেন মুক্তিযুদ্ধে ০২ লাখ মা-বোন ধর্ষিত হওয়ার যে তথ্য বলা হচ্ছে,তা সঠিক নয়। এ সংখ্যা পাঁচ লাখের উপরে। বীরঙ্গনাদের নিয়ে আসলে কোন গবেষণায় হয়নি। মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধু নিয়ে মৌলিক কোন গবেষণা নেই। 

পৃথিবীতে একমাত্র দেশ বাংলাদেশ যেখানে স্বাধীনতার পক্ষেও বিপক্ষে শক্তি আছে, আর কোথাও এটি পাবেন না।স্বাধীনতার এতো বছর পর ৩০ শতাংশ লোক যদি পাকিস্তানের পক্ষে থাকে,তাহলে কি হলো? আমরা কি রাজনীতি করলাম? আমরা পাকিস্তানি ভাবধারা থেকে মুক্ত হতে পারছি না,ব্রিটিশদের থেকে মুক্ত হতে পারছি না। 

বঙ্গবন্ধু মাত্র ৫১ বছর বয়সে একটা রাষ্ট্র সৃষ্টি করতে পারলেন অথচ আমরা কিছুই করতে পারছি না,এর একটাই কারণ তিনি যা ভেবেছেন তাই করেছেন। বঙ্গবন্ধু  একটি অসাম্প্রদায়িক শোষণমুক্ত সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন।  

দেশের সংবিধান তৈরি সময় জাতির পিতা ড. কামাল হোসেন কে দুটি বিষয় বারবার বলেছেন, তা হলো ধর্মনিরপেক্ষতা যুক্ত করা ও ধর্মভিত্তিক রাজনীতির নিষিদ্ধ করা। তিনি বঙ্গবন্ধুর জীবনবোধ, রাজনৈতিক দর্শন সর্বোপরি তার রাষ্ট্র দর্শন নিয়ে গবেষণাধর্মী তথ্যবহুল আলোচনা করেন।

– দিনাজপুর দর্পণ নিউজ ডেস্ক –